সকল মেনু

রেনাটার লভ্যাংশ ঘোষণা, মুনাফা বাড়লেও এবার কম দিচ্ছে রেনেটা

স্টাফ রিপোর্টার: রেনাটা লিমিটেডের আয় বাড়ার পরও চলতি বছরে লভ্যাংশ কিছুটা কমিয়েছে। কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ এবার নগদ ও বোনাস মিলিয়ে ১৪৭ শতাংশ লভ্যাংশ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যা আগের বছর ছিল ১৫৫ শতাংশ।

৩০ জুন (বৃহস্পতিবার) সমাপ্ত অর্থছরের হিসাব পর্যালোচনা করে শনিবার (২২ অক্টোবর) কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ বিনিয়োগকারীদের ১৪০ শতাংশ নগদ এবং ৭ শতাংশ বোনাস শেয়ার দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। অর্থাৎ প্রতি শেয়ারের জন্য বিনিয়োগকারীরা পাবেন ১৪ টাকা আর প্রতি একশটি শেয়ারের বিপরীতে পাবেন সাতটি করে শেয়ার।

আগের বছর বিনিয়োগকারীরা ১৪৫ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ বোনাস শেয়ার পেয়েছিলেন। অর্থাৎ প্রতি শেয়ারের বিপরীতে সাড়ে ১৪ টাকা ও প্রতি ১০০ শেয়ারে ১০টি শেয়ার পেয়েছিলেন তারা।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ওষুধ খাতে কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ১০৭ কোটি ১৯ লাখ ৩০ হাজার টাকা। কোম্পানিটির শেয়ার সংখ্যা ১০ কোটি ৭১ লাখ ৯২ হাজার ৯৮৩টি। এই হিসেবে কোম্পানিটি ১৫০ কোটি ৭ লাখ ১ হাজার ৭৬২ টাকা লভ্যাংশ দেবে।

আগের বছর শেয়ার অনুপাতে বেশি দিলেও শেয়ার সংখ্যা এবারের চেয়ে ১০ শতাংশ কম হওয়ায় মোট ১৪১ কোটি ২৯ লাখ ৯৮ হাজার ৪১২ টাকা নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি।

২০২১ সালের জুলাই থেকে গত জুন পর্যন্ত রেনাটার শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ৪৭ টাকা ৬৮ পয়সা। আগের বছর কোম্পানিটির পুনর্মূল্যায়নকৃত ইপিএস ছিল ৪৭ টাকা ২২ পয়সা।

গত এক বছরে ওষুধের দাম অনেকটা বাড়লেও রেনাটার আয়ে খুব একটা প্রবৃদ্ধি হয়নি উৎপাদন ও বিপণন ব্যয় বাড়ার কারণে।  তবে কোম্পানিটির সম্পদমূল্য অনেকটাই বেড়েছে। গত জুন শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ দাঁড়িয়েছে ২৭৪ টাকা ৩৯ পয়সা। এক বছর আগে ১০ শতাংশ বোনাস শেয়ার পুনর্মূল্যায়নের পর যা ছিল ২৩৯ টাকা ৮৬ পয়সা।

এই লভ্যাংশ যারা নিতে চান তাদের আগামী ১০ নভেম্বর শেয়ার ধরে রাখতে হবে, অর্থাৎ সেদিনই এর লভ্যাংশ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট। এই লভ্যাংশ চূড়ান্ত করতে বার্ষিক সাধারণ সভা বা এজিএম ডাকা হয়েছে আগামী ১৭ আগস্ট।

ওষুধ খাতের শক্তিশালী মৌলভিত্তির কোম্পানিটির শেয়ারদর বর্তমানে বেঁধে দেয়া সর্বনিম্ন মূল্য বা ফ্লোর প্রাইসে লেনদেন হচ্ছে। ১৮ সেপ্টেম্বর (রোববার) থেকে এক হাজার ৩০৩ টাকা ২০ পয়সা-এই একটি দরেই হাতবদল হচ্ছে শেয়ার। তবে খুব একটা ক্রেতা নেই এর।

এই সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ ২০ হাজার ২৩২টি শেয়ার হাতবদল হয় গত ২৫ সেপ্টেম্বর (রোববার)। আর সর্বনিম্ন ৩৬৫টি শেয়ার হাতবদল হয় গত ৬ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার)। লভ্যাংশ ঘোষণার আগের কর্মদিবস বৃহস্পতিবার হাতবদল হয় ১ হাজার ৭০৩টি। গত এক বছরে কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বনিম্ন মূল্য ছিল ১ হাজার ২৮২ টাকা থেকে ১ হাজার ৪৬৯ টাকা ৩০ পয়সা।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, কর্তৃপক্ষ এর দায়ভার নেবে না।

top