সকল মেনু

সীমার অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা ব্যয় করেছে ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্স

সিনিয়র রিপোর্টার: ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড সর্বশেষ ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত ২০২২ হিসাব বছরে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রন কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) নির্ধারিত সীমার অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা ব্যয় করেছে। এছাড়া কোম্পানিটি আলোচ্য হিসাব বছরের আর্থিক প্রতিবেদন ও পোর্টফোলিও প্রতিবেদনে আনরিয়েলাইজড গেইন নিয়ে দুই ধরনের তথ্য দিয়েছে।

কোম্পানির নিরীক্ষক ইসলাম আফতাব কামরুল অ্যান্ড কোং চার্টার্ড অ্যাকাউন্টন্টস এ তথ্য জানিয়েছে।

নিরীক্ষক ডিএসইর মাধ্যমে জানিয়েছে, ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্স সর্বশেষ সমাপ্ত ২০২২ হিসাব বছরের আর্থিক প্রতিবেদনে ২১ কোটি ৯৭ লাখ ৬৬ হাজার ৩২৮ টাকা ব্যবস্থাপনা ব্যয় দেখিয়েছে। আইডিআরএর নির্ধারিত সীমার চেয়ে এ ব্যবস্থাপনা ব্যয় ৯৫ লাখ ৬১ হাজার ১২৩ টাকা বেশি।

এছাড়া কোম্পানিটি তাদের আর্থিক প্রতিবেদনে ২৯ কোটি ৬২ লাখ ৪৪ হাজার ১৭ টাকা আনরিয়েলাইজড গেইন দেখালেও পোর্টফোলিও প্রতিবেদনে এর পরিমান ২০ কোটি ২ লাখ ৩৫ হাজার ৬১৭ টাকা। এ পার্থক্যের বিষয়ে কোম্পানিটি বলছে, তাদের রেকর্ড ও পোর্টফোলিও প্রতিবেদনে সিটি ব্যাংক ও ফিনিক্স ফাইন্যান্স এন্ড ইনভেস্টমেন্টের কাগুজে শেয়ারের ক্রয় মূল্যের পার্থক্যের কারণে এটি হয়েছে।

নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুসারে, সমাপ্ত ২০২২ হিসাব বছরে ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্সের কর-পরবর্তী নিট মুনাফা হয়েছে ৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ৮ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। এক বছরের ব্যবধানে কোম্পানিটির নিট মুনাফ কমেছে ৭৩ লাখ টাকা বা ৮ দশমিক ২২ শতাংশ।

আলোচ্য হিসা বছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ২ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ২ টাকা ২০ পয়সা। গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর শেষে কোম্পানিটির এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ৩৭ টাকা ১০ পয়সায়, আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ৩৯ টাকা ৯০ পয়সা।

এদিকে সর্বশেষ সমাপ্ত ২০২২ হিসাব বছরে শেয়াহোল্ডারদের জন্য ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে কোম্পানিটি। ঘোষিত লভ্যাংশ ও আলোচ্য হিসাব বছরের অন্যান্য এজেন্ডায় শেয়ারহোল্ডারদের অনুমোদন নিতে ৩১ মে বেলা ২টা ৩০ মিনিটে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আহ্বান করেছে কোম্পানিটি। এ-সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট ছিল গত ১৭ এপ্রিল।

৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত ২০২১ হিসাব বছরের জন্য বিনিয়োগকারীদের ১৫ শতাংশ নগদ দিয়েছে কোম্পানিটি। আলোচ্য হিসাব বছরে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২ টাকা ২০ পয়সা, যা আগের হিসাব বছরে ছিল ২ টাকা ৩৩ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ শেষে কোম্পানিটির এনএভিপিএস দাঁড়ায় ৩৯ টাকা ৯০ পয়সা। ২০২০ হিসাব বছরের জন্যও শেয়ারহোল্ডারদের ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্স।

২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে শেয়ারহোল্ডারদের ১২ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয় কোম্পানিটির। আগের হিসাব বছরেও একই হারে নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি। ২০১৭ হিসাব বছরে কোম্পানিটি ১৬ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়। আগের হিসাব বছরে ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি।

সর্বশেষ ঋণমান অনুসারে, ফিনিক্স ইন্স্যুরেন্সের দাবি পূরণের সক্ষমতা (সিপিএ) রেটিং ‘ডাবল এ’। ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত ২০২১ হিসাব বছরে নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন, ২০২২ হিসাব বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত সময়ের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদ ও প্রাসঙ্গিক অন্যান্য গুণগত বৈশিষ্ট্যের ওপর ভিত্তি করে এ প্রত্যয়ন করেছে সিআরআইএসএল।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, কর্তৃপক্ষ এর দায়ভার নেবে না।

top