সকল মেনু

পুঁজিবাজারে আসতে চায় সাইফ পাওয়ারের ই-ইঞ্জিনিয়ারিং

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হতে চায় প্রকৌশল খাতের কোম্পানি ই-ইঞ্জিনিয়ারিং পিএলসি। প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ১২০ কোটি টাকা তুলতে চায় কোম্পানিটি। কোম্পানির পরিচালনা বোর্ডের বৈঠকে সম্প্রতি এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সাইফ পাওয়ার গ্রুপের কোম্পানিটি আইপিওর মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে ১২০ কোটি টাকা তুলবে। তা দিয়ে অটোক্লেভ প্যানেলস, কনক্রিট ব্লক, ইট ও টাইলস উৎপাদনের প্ল্যান্ট স্থাপন করবে। বর্তমানে কোম্পানির ১২ কোটি শেয়ার থাকলেও ৩ কোটি ইস্যু করার পরিকল্পনা করছে কোম্পানির কর্তৃপক্ষ ।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হলে গ্রুপের দ্বিতীয় কোম্পানি হবে ই-ইঞ্জিনিয়ারিং। গ্রুপের ফ্ল্যাগশিপ কোম্পানি সাইফ পাওয়ারটেক লিমিটেড ২০১৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে। কোম্পানিটি মূলত সমুদ্রবন্দর পরিচালনা সংক্রান্ত সেবা দিয়ে থাকে। এর পাশাপাশি বাংলাদেশ-দুবাই রুটে জাহাজ পরিচালনার ব্যবসায়ও যুক্ত হয়েছে।

ই-ইঞ্জিনিয়ারিং পিএলসি মূলত একটি ইপিসি (ইঞ্জিনিয়ারিং, প্রকিউরমেন্ট এবং কনস্ট্রাকশন) কোম্পানি। কোম্পানি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চাহিদা অনুসারে, তাদের জন্য অবকাঠামোর ডিজাইন, পণ্য ক্রয়, অবকাঠামো তৈরি ও সংস্থাপন করে থাকে। পাশাপাশি ই-ইঞ্জিনিয়ারিং পিএলসি নিরাপত্তা ও আইটি সংশ্লিষ্ট ইক্যুইপমেন্ট, ড্রেজার, ক্রেন, ভারি মেশিনারিজ সরবরাহ ও সংস্থাপন সংক্রান্ত সেবা দিয়ে থাকে। কোম্পানির ব্যবসার পরিধির মধ্যে আরও রয়েছে নদী খনন, ভূমি উন্নয়ন, বহুতল ভবন নির্মাণ, সড়ক, সেতু, ফ্লাইওভার ইত্যাদি নির্মাণ।

ই-ইঞ্জিনিয়ারিং পিএলসি বেশ কয়েকটি বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে কাজ করে এবং বেশ কয়েকটি কোম্পানির পণ্য ও সেবার পরিবেশক তারা। কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে- যুক্তরাষ্ট্রের এস্ট্রোফিজিকস, স্ক্যানস্ক্যান, আমেরিকান সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, তুরস্কের রিডোম্যাক টার্কি, সিঙ্গাপুরের এমটি কমিউনিকেশন, নেদারল্যান্ডসের ইউভি স্ক্যান।

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) অনুমোদন সাপেক্ষে আইপিওর সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, কর্তৃপক্ষ এর দায়ভার নেবে না।

top