সকল মেনু

৯ ব্রোকারেজ হাউজের ১৫ ট্রেডারকে বহিষ্কারের নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার: পুঁজিবাজারে দর পতন ঘটাতে সিকিউরিটিজ আইন লঙ্ঘন করে শেয়ার বিক্রিতে জড়িত ৯ ব্রোকারেজ হাউজের ১৫ ট্রেডারকে বহিষ্কারের নির্দেশ দিয়েছে বিএসইসি। সোমবার (১৮ এপ্রিল) বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এ নির্দেশ দেয়।

শেয়ারবাজারে বিভিন্ন ব্রোকারেজ হাউসের ট্রেডাররাই মূলত লেনদেন কার্যক্রম পরিচালনা করেন। বিনিয়োগকারীদের ক্রয় বা বিক্রয়াদেশ তাঁরাই বাস্তবায়ন করে থাকেন। সিকিউরিটিজ আইন অনুযায়ী, ট্রেডারদের বলা হয় অথরাইজড রিপ্রেজেনটেটিভ বা অনুমোদিত প্রতিনিধি। লেনদেনের ক্ষেত্রে এই ট্রেডারদের সুনির্দিষ্ট আইন বা আচরণবিধি মেনে চলতে হয়।

সোমবার শেয়ারবাজারে লেনদেন শুরুর পর ৯টি ব্রোকারেজ হাউসের ১৫ জন ট্রেডার সিকিউরিটিজ আইন ও আচরণবিধি লঙ্ঘন করে শেয়ার বিক্রির ক্ষেত্রে অনিয়মের আশ্রয় নেন। এসব ট্রেডাররা কোনো দাম না উল্লেখ না করে বড় অঙ্কের শেয়ার বিক্রির আদেশ দেন। যেটিকে মার্কেট প্রাইস বা জিরো প্রাইস অর্ডার বলা হয়।

ব্রোকারেজ হাউসগুলোর মধ্যে রয়েছে- আইসিবি সিকিউরিটিজ ট্রেডিং কোম্পানি, মার্কেন্টাইল ব্যাংক সিকিউরিটিজ, পার্কওয়ে সিকিউরিটিজ,  কাজী ইক্যুইটিজ, রশিদ ইনভেস্টমেন্ট সার্ভিসেস, শ্যামল ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট, কাইয়ুম সিকিউরিটিজ, জেকেসি সিকিউরিটিজ ও টি এ খান সিকিউরিটিজ।

এসব ব্রোকারেজ হাউজগুলোর মধ্যে আইসিবি সিকিউরিটিজের পাঁচ জন, রশিদ ইনভেস্টমেন্টের দুই জন, শ্যামল ইক্যুইটির দুই জন এবং মার্কেন্টাইল ব্যাংক সিকিউরিটিজ, পার্কওয়ে সিকিউরিটিজ, কাজী ইক্যুইটিজ, কাইয়ুম সিকিউরিটিজ, জেকেসি সিকিউরিটিজ ও টি এ খান সিকিউরিটিজের একজন করে ট্রেডারকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এদিকে শূন্য টাকায় শেয়ার বিক্রির আদেশ আসা কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে- স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস, লাফার্জহোলসিম বাংলাদেশ, গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স, নিটল ইন্স্যুরেন্স, বিকন ফার্মা, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, আইসিবি ও ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, কর্তৃপক্ষ এর দায়ভার নেবে না।

top